মাউতির বাঁধটি বন্ধকরনে প্রশাসনের প্রাণপণ চেষ্টা

প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০২২, ৮:৪৯ অপরাহ্ণ

শাল্লা প্রতিনিধিঃঃ-গত রোববার ভোর ৫ টায় বাঁধ ভেঙ্গে ছায়ার হাওরের বোরো ফসল তলিয়ে যায়। হাওর রক্ষা বাঁধের ৮১ নং প্রকল্পের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের গাফলতিকে দায়ী করেছেন স্থানীয় কৃষকেরা।কৃষকদের দাবি পাউবোও প্রকল্পের লোকজনের দুর্নীতি ও অনিয়মের মাধ্যমে জোড়াতালি কাজ করার জন্যই বাঁধটি ভেঙ্গে অকাল বন্যায় তলিয়ে গেছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলী জমি।

এদিকে খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক জাহাঙ্গীর হোসেন। এসময় স্থানীয় কৃষকরা পিআইসির সভাপতি ও সদস্য সচিবকে দোষারোপ করে মৌখিক অভিযোগ করেন জেলা প্রশাসকের কাছে। কৃষকেরা অভিযোগ করে বলেন প্রকল্পের সভাপতি ও সদস্য সচিবের ছায়ার হাওরে জমি না থাকা সত্যেও তারা প্রকল্প পায় কিভাবে?তবে জেলা জেলা প্রশাসক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারি প্রকৌশলী (এসও) কে ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধের ভাঙ্গা বন্ধ করতে দ্রুত মেরামতের জন্য নির্দেশ দেন।

এরই পরিপেক্ষিতে রোববার রাত থেকে ছায়ার হাওরের মাউতি বাঁধের ভাঙ্গা বন্ধ করতে উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয়দের সহযোগিতায় বাঁধের ভাঙ্গা বন্ধ করতে রাতভর কাজ করে যাচ্ছেন এলাকাবাসী। পরে সকাল থেকে উপজেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক রনজিত কুমার দাস নিজস্ব লোক নিয়ে বাঁধ মেরামতের কাজে এগিয়ে আসেন।

উপজেলা কৃষকলীগের আহ্বায়ক রনজিত কুমার দাস জানান, পানির তেমন বেগ নেই। এখনো যদি ভাঙ্গা বন্ধ করা যায় তাহলে হাওরের কোনো ক্ষতি হবে না। তাই এলাকার কথা চিন্তা করেই আমি নিজ উদ্যোগে লোকবল নিয়ে বাঁধ রক্ষায় প্রশাসনকে সহযোগিতা করতে আসছি। আশা করছি বাঁধটি রক্ষা হবে এবং কৃষকদের ফসলও ঘরে তোলা হবে।

বাঁধটি শতভাগ রক্ষা করতে গেলে আমাদের অনেক সাপোর্ট দরকার জানিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু তালেব বলেন,যদিও হাওরে আর কোন ধান নেই ২% এর মত রয়েছে কৃষকদের বাকি ধানগুলো যাতে ভাল করে তুলতে পারে সেই লক্ষে বাঁশ,জিও ব্যাগ,বন(খড়) দিয়ে পানির স্রোত কামানোর সঙ্গে সঙ্গে বাঁধ দিয়ে পানি আটকানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন বলে জানান তিনি।